বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১:০৩ এএম


‘এএসপি’ পদের সমান্তরাল ডিএসপি পদ সৃষ্টির সুপারিশ

প্রকাশিত: ০৬:১৩, ৬ আগস্ট ২০২০  

পুলিশের ইন্সপেক্টর (পরিদর্শক) পদোন্নতি পেয়ে ডেপুটি সুপারিনটেনডেন্ট অব পুলিশ(ডিএসপি) হবেন। এএসপি (সহকারী পুলিশ সুপার) পদে পদোন্নতিতে দীর্ঘদিন ধরে জট থাকায় বিকল্প হিসাবে ডিএসপি পদ তৈরির সুপারিশ করা হয়েছে।

গত ২৮ জুলাই পুলিশের পলিসি গ্রুপের এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত পুলিশ পলিসি গ্রুপের বৈঠকে আলোচনা অংশ নেন সকল অতিরিক্ত আইজিপি ও ডিআইজি। আলোচনা শেষে ইন্সপেক্টরদের পদোন্নতির জন্য ‘এএসপি’ পদের সমান্তরাল ডিএসপি (নন ক্যাডার) পদ সৃষ্টির সুপারিশ করা হয়।

পুলিশ সদর দপ্তরের ওএন্ডএম (অর্গানাইজেশন এ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট) শাখার অতিরিক্ত ডিআইজি এস এম আক্তারুজ্জামান স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত প্রস্তাবনা ও সুপারিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিবের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো প্রস্তাব ও সুপারিশমালায় বলা হয়েছে, দেশে ইন্সপেক্টরের পদ সংখ্যা ৬ হাজার ৮শ ৬৯ টি এবং সহকারী পুলিশ সুপার পদের সংখ্যা ১ হাজার ৩শ ৮০ টি। সহকারী পুলিশ সুপার পদের এক-তৃতীয়াংশ অর্থাৎ ৪৪১ টি পদ ইন্সপেক্টরদের মধ্য থেকে পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণ করা হয়। এই পদ মোট ইন্সপেক্টরদের মধ্যে মাত্র সাড়ে ৬ ভাগ। ফলে ৯৩ ভাগ ইন্সপেক্টর পদোন্নতি ছাড়াই অবসরে চলে যান। এ কারণে ইন্সপেক্টরদের মধ্যে ডিউটি করার সময় এক ধরনের হতাশা কাজ করে। ২৫/৩০ বছর এক পদে চাকরি করার কারণে তাদের কর্মস্পৃহা হারিয়ে ফেলে পুলিশ বিভাগে বিরূপ প্রভাব পড়েছে।

আরো পড়ুনঃ বৈরুতে বিস্ফোরণে নিহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রনির পরিবারের শোকের ছায়া

পাঠানো প্রস্তাবনায় আরো বলা হয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে কাজের গতিশীলতা আনতে এবং বিদ্যমান সংকট নিরসনে ইন্সপেক্টরদের জ্যেষ্ঠতা ও সন্তোষজনক কর্মকাল অতিক্রান্তের ভিত্তিতে ‘ডিএসপি’ পদবীতে এএসপি’র দায়িত্ব অর্পণ করা যেতে পারে। ডিএসপি পদ বাস্তবে কোনো পদোন্নতি নয়। এটা ইন্সপেক্টরদের উচ্চতর পদের সাময়িক দায়িত্ব পালনকালীন পদবি মাত্র। ডিএসপি পদে কর্মকর্তারা অস্থায়ীভাবে এএসপি পদে দায়িত্ব অর্পণ করা যেতে পারে। ডিএসপি অফিসারগণ র‌্যাংক ব্যাজ হিসাবে ২ টি পিপস পরিধান করবেন। সরাসরি নিয়োগপ্রাপ্ত এএসপি অফিসারগণ প্রশিক্ষণকালে ২ টি পিপস এবং প্রশিক্ষণ সম্পন্নকালে ৩ টি পিপস পরিধান করেন। এতে ডিএসপি ও এএসপি পদে র‌্যাংক ব্যাজ নিয়ে অসামঞ্জস্যতা তৈরি হবে না।

পাঠানো প্রস্তাব ও সুপারিশমালায় বেশ কিছু শর্তাবলী দেওয়া হয়েছে। ডিএসপি পদবীতে সাময়িকভাবে এএসপি পদের দায়িত্ব পালন করলেও এএসপি পদে ক্যাডারভুক্ত হওয়ার সময় কোন ধরনের জ্যেষ্ঠতা পাবেন না। ডিএসপি পদে দায়িত্বপ্রাপ্ত ইন্সপেক্টরদের বেতন গ্রেডের কোন পরিবর্তন হবে না। এ ক্ষেত্রে কোন আর্থিক সুবিধা পাবেন না। প্রয়োজনীয় সংখ্যক এএসপি পাওয়া গেলে ডিএসপি অফিসারদের তাদের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে সারাদেশের সাব-ইন্সপেক্টর ও ইন্সপেক্টরগণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। একজন ১৯৯২ সালের এসআই ক্যাডেট জানিয়েছেন, চাকরিতে যোগ দেওয়ার পর ১৯৯৯ সালে ইন্সপেক্টর পদে পদোন্নতি পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন করি। কিন্তু পিএএল ভুক্ত হওয়ার পর পদোন্নতি পাই ২০০৭ সালে। ততক্ষণে চাকরির ১৫ বছর চলে গেছে। ২০২০ সালে এসে এখনো ইন্সপেক্টর পদেই রয়ে গেলাম। এএসপি পদে পদোন্নতি হল না। আমাদের চোখে এএসপি, এডিশনাল এসপি ও এসপি পদে পদোন্নতি স্বপ্ন থেকে গেলো। আর ২/৩ বছর পর আমরা অবসরে চলে যাচ্ছি। ’

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পুলিশ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাযহারুল ইসলাম বলেন, আমরা এ ব্যাপারে শনিবার একটি মিটিং ডেকেছি। মিটিংয়ে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে নেওয়া সিদ্ধান্ত আইজিপি’র কাছে উপস্থাপন করা হবে।’

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর