শুক্রবার ১৪ আগস্ট, ২০২০ ১০:৩৮ এএম


ঈদ ৩১ জুলাই অনুষ্ঠিত হলে কর্তন হবে বর্ধিত বোনাস

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৮:০৫, ১১ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১৯:০৪, ১১ জুলাই ২০২০

আসন্ন কোরবানির ঈদ ৩১ জুলাই অনুষ্ঠিত হলে ১৩ লাখ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর পরবর্তী মাসের বেতন বা পেনশন থেকে অতিরিক্ত দেয়া ঈদ বোনাসের অর্থ কেটে নেয়া হবে। যদি ১ আগস্ট ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হয়, তাহলে বর্ধিত বোনাস কাটা হবে না। এমন শর্তে সরকারি চাকরিজীবীদের ঈদ বোনাস দেয়ার ব্যাপারে মতামত দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

মহাহিসাব নিয়ন্ত্রক (সিএজি) কার্যালয় থেকে পাঠানো এক চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার এ মতামত দিয়েছে অর্থ বিভাগ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা যায়, দিন-তারিখের এ জটিলতায় সরকারের বর্ধিত বোনাসে অতিরিক্ত ব্যয় ১৩০ থেকে ১৪০ কোটি টাকা বেশি হবে। তবে বোনাস ইস্যুর পর ৩১ জুলাই ঈদ অনুষ্ঠিত হলে এ টাকা সমন্বয় করা হবে চাকরিজীবীদের হিসাব থেকে।

জানা গেছে, প্রতি বছর আইন অনুযায়ী সরকারি চাকরিজীবীদের ঈদ বোনাস হয়। এতে কোনো জটিলতা থাকে না। কিন্তু এবার জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে ক্যালেন্ডার ও চাঁদ দেখার তারিখ নিয়ে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আইনে বলা আছে, উৎসব যে মাসে অনুষ্ঠিত হবে এর আগের মাসের আহরিত মূল বেতনের সমান বোনাস পাবেন চাকরিজীবীরা।

নিয়ম অনুযায়ী ১ আগস্ট ঈদ হলে জুলাইয়ের মূল বেতনের সমান বোনাস পাবেন। কিন্তু ২০১৫ সালে অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের পর থেকে প্রতি বছর জুলাই মাসে ৫ শতাংশ হারে ইনক্রিমেন্ট পাচ্ছেন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। ফলে জুলাইয়ে আহরিত মূল বেতন সাধারণত অন্য মাসের তুলনায় বেশি হয়। কারণ এ মাসে মূল বেতন ৫ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। ফলে ১ আগস্ট ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হলে একজন চাকরিজীবী ইনক্রিমেন্টসহ মূল বেতনের সমান বোনাস পাওয়ার কথা। আর ৩১ জুলাই ঈদ অনুষ্ঠিত হলে বোনাস পাবেন জুনের মূল বেতনের সমান। ফলে ঈদের দিন হিসাব করে বোনাস দেয়া নিয়ে জটিলতায় পড়ে সিএজি কার্যালয়।

সিএজি কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, বোনাস দেয়া হবে জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে। কিন্তু ঈদ অনুষ্ঠিত হবে ৩১ জুলাই হিসাব ধরে বোনাস দেয়া হলে জুনের মূল বেতনের সমান প্রদান করতে হবে। আর ১ আগস্টে ঈদ হবে সে হিসাব করে বোনাস দেয়া হলে মূল বেতনের সঙ্গে ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট যোগ করে বেশি বোনাস দিতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, জুলাইয়ের ইনক্রিমেন্টসহ যোগ করে বর্ধিত মূল বেতনের সমান বোনাস ইস্যুর পর ঈদ ৩১ জুলাই অনুষ্ঠিত হলে সরকারের অনেক টাকা বেশি চলে যাবে। এজন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের মতামত চাওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, ৫ জুলাই অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানতে চেয়ে চিঠি দিয়েছে সিএজি কার্যালয়। সেখানে বলা হয়, অর্থ বিভাগ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্মারক নম্বর ভাতা-১০/৯২/৩২ তারিখ : ১৬/০৬/১০৯২ অনুযায়ী যে মাসে উৎসব অনুষ্ঠিত হবে তার পূর্ববর্তী মাসের আহরিত মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী উৎসব ভাতা হিসেবে প্রাপ্য হবেন মর্মে সরকারি সিদ্ধান্ত রয়েছে। পেনশনারদের উৎসব ভাতা দেয়ার ক্ষেত্রে একই নির্দেশনা রয়েছে।

এছাড়া জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রাপ্য ছুটির তালিকা অনুযায়ী আসন্ন ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাব্য তারিখ ১ আগস্ট। চাঁদ দেখার ওপর নির্ভরশীল হওয়ায় ঈদুল আজহা ৩১ জুলাইও অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উৎসব ভাতা গত মাসের আহরিত মূল বেতন বা পেনশনের ওপর পরিশোধিত হবে, নাকি জুলাইয়ের মূল বেতন বা পেনশনের ওপর ভিত্তি করে প্রদেয় হবে সে বিষয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়।

সিএজির কার্যালয়ের ওই চিঠিতে আরও বলা হয়, এ বিষয়ে সিএজি কার্যালয়ের মতামত হচ্ছে- ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাব্য তারিখ ১ আগস্ট ধরে বার্ষিক বর্ধিত বেতনসহ জুলাইয়ে গৃহীত মূল বেতন বা পেনশনের ভিত্তিতে ঈদুল আজহার উৎসব ভাতা প্রদান করা যেতে পারে। ঈদুল আজহা ৩১ জুলাই হলে তা পরবর্তী মাসের বেতন বা পেনশন থেকে সমন্বয় করা যেতে পারে।

সেই পরিপ্রেক্ষিতে অর্থ মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয়কে চিঠি দিয়ে জানিয়েছে, আসছে ঈদুল আজহার সম্ভাব্য দিন ১ আগস্ট ধরে বার্ষিক বর্ধিত জুলাইয়ে গৃহীত মূল বেতন বা পেনশনের ভিত্তিতে উৎসব ভাতা প্রদান করতে হবে। ঈদুল আজহা যদি ৩১ জুলাই হয় তাহলে তা পরবর্তী মাসের বেতন বা পেনশন থেকে বর্ধিত টাকা সমন্বয় করতে হবে।

জানা গেছে, বোনাসের হিসাব নিয়ে জটিলতা সৃষ্টির পর বাংলাদেশ সচিবালয় অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন থেকে একটি চিঠি দেয়া হয় অর্থ সচিবের কাছে। ওই চিঠিতে জুলাইয়ের মূল বেতনের সমপরিমাণ বোনাস দেয়ার দাবি জানানো হয়।

এ বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম বুধবার  বলেন, ২০১৫ সালের বেতন স্কেল অনুযায়ী সরকারি চাকরিজীবীদের প্রতি বছর ১ জুলাই থেকে বার্ষিক ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট কার্যকর হয়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ স্মারক অনুযায়ী, যে মাসে উৎসব অনুষ্ঠিত হবে তার পূর্ববর্তী মাসে আহরিত মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী উৎসব ভাতা হিসেবে পাবেন। পেনশনারদের উৎসব ভাতা প্রদানের ক্ষেত্রেও পূর্ববর্তী মাসের আহরিত পেনশনের সমপরিমাণ উৎসব ভাতা প্রদানের অনুরূপ নির্দেশনা রয়েছে।

ঈদুল আজহা যদি ১ আগস্টে হয়, তা হলে সরকারি চাকরিজীবীরা বোনাস পাবেন বার্ষিক বর্ধিত জুলাইয়ের মূল বেতনের সমান। এটি নিয়ম। যদি ঈদ ৩১ জুলাই হয়, তাহলে এটি সমন্বয় করতে পারে তা আমরাও বলেছি।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর