শুক্রবার ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ১৫:১২ পিএম

Sonargaon University Dhaka Bangladesh
University of Global Village (UGV)

আরও ২৩ জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১১:৫৬, ৫ নভেম্বর ২০১৮  

কারিগরি শিক্ষার সুযোগ প্রান্তিক পর্যায়ে সম্প্রসারণের মাধ্যমে দক্ষ জনবল গড়ে তুলতে নতুন করে ২৩ জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন করতে যাচ্ছে সরকার। এসব প্রতিষ্ঠানে আধুনিক ও বিশ্বমানের ট্রেড (বিষয়) খোলা হবে। তিন হাজার ৬৯১ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘২৩টি জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন’ প্রকল্পটি গত মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন হয়েছে। দ্রুত প্রকল্পটি বাস্তবায়ন শুরু হবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

বিষয়টি স্বীকার করে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর বলেন, ‘২৩ জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নেই। এসব জেলায় নতুন করে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হবে। শিক্ষার্থীরা বাড়ির কাছে কম খরচে কারিগরি শিক্ষার সুযোগ পাবে। কারিগরি শিক্ষার এনরোলমেন্ট বাড়বে। দক্ষ জনশক্তি তৈরির মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন হবে।’

কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ সূত্র জানায়, প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে- দেশে ও বিদেশে বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ চাকরি বাজারের চাহিদার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টি করতে নতুন করে সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন। এর মাধ্যমে দেশে-বিদেশে প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষক-কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। ২৩টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স, ইলেকট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল, ফ্যাশন ডিজাইন, সিরামিক, সিভিল, লেদার, অটোমোবাইল, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, আর্কিটেকচার অ্যান্ড ইন্টেরিয়র ডিজাইন, ফিসারিজ, শিপ বিল্ডিং, প্লাস্টিক অ্যান্ড পলিমার, রিনিউএ্যাবল অ্যান্ড গ্রিন এনার্জি, ফিল্ম মেকিং অ্যান্ড এনিমেশন, ফুড এগ্রিকালচার ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রিন্টিং অ্যান্ড ম্যানেজম্যান্ট, সার্ভেয়িং, পাওয়ার ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিইনিকেশন, লাইভস্টক, রেফ্রিজারেশন অ্যান্ড এয়ারকন্ডিশন, ওশেনোগ্রাফিক, মেরিন, ইলেকট্রনিক, মেকানিক্স এবং এয়ারক্রাফট মেইনটেন্যান্স টেকনোলজিসহ মোট ২৯টি ট্রেড বিষয় চালু করা হবে। প্রতিটি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে প্রতি বছর ৯ হাজার ২০০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে। প্রতি শিফটে টেকনোলজিতে ৫০ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি করা হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চাহিদা অনুযায়ী প্রকল্পের অধীনে ২৩টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের জন্য ছয়তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবন, ছয়তলা বিশিষ্ট ওয়ার্কশপ, একটি সেমিপাকা ওয়ার্কশপ নির্মাণ করা হবে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে ছাত্রদের জন্য ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট একটি ছয়তলা হোস্টেল ও ছাত্রীদের জন্য ২০০ শয্যাবিশিষ্ট ছয়তলা হোস্টেল নির্মাণ করা হবে। একইসঙ্গে অধ্যক্ষের জন্য দুই তলাবিশিষ্ট একটি আবাসিক ভবন, ছয়তলা শিক্ষক ডরমেটরি ও স্টাফ কোয়ার্টার স্থাপন, দুইতলা মাল্টিপারপাস বিল্ডিং, তিনতলা জিমনেসিয়াম, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক সেন্টার, তিনতলা করে একটি অডিটরিয়াম, সেমিনার ও এক্সিভিশন হল নির্মাণ করা হবে।

এর বাইরে ইনস্টিটিউটের জন্য গ্রিন বাউন্ডারি ওয়াল, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, গার্ড রুম, অভ্যন্তরীণ বৈদ্যুতিক কাজ সমাধানে ৫০০ কেভিএ সাব-স্টেশন, গভীর নলক‚প ও পানির পাইপ লাইন স্থাপন, আন্ডার গ্রাউন্ড রিজার্ভ, ওভারহেড ওয়াটার ট্যাংক, অভ্যন্তরীণ ভূগর্ভস্থ ড্রেন, শহীদ মিনার, পুকুর খনন ও বৃক্ষ রোপণ, গ্রাস লাইন সংযোগ স্থাপনসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের আওতায় নতুন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ভৌত অবকঠামো উন্নয়নে দুই হাজার ৩৪২ কোটি ৮৪ লাখ ৮৫ হাজার টাকা ব্যয় করা হবে। আর প্রকল্প কার্যালয়ের জনবল নিয়োগসহ বিভিন্ন ভাতাদি ও জমি অধিগ্রহণ বাবদ এক হাজার ২২৬ কোটি ৫৫ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ব্যয় করা হবে।

সূত্র জানায়, বর্তমানে সারাদেশে ৪৯টি সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট রয়েছে। এর মধ্যে চারটি বিভাগে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসহ (গ্রাফিক আর্টস, সার্ভে, গ্যাস অ্যান্ড সিরামিকস এবং কম্পিউটার) মোট আটটি বিশেষায়িত ইনস্টিটিউট রয়েছে। কিন্তু বিধ্যমান পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের বাইরেও দেশের ২৩টি জেলায় কোনো সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নেই। সরকারি সিন্ধান্ত অনুযায়ী, যেসব জেলায় সরকারি সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নেই সেসব জেলায় একটি করে সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন করা হবে। এর আলোকেই নতুন প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার।

সূত্র জানিয়েছে- গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, মাদারীপুর, নারায়ণগঞ্জ, রাজবাড়ী, নেত্রেকোনা, জামালপুর, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, নোয়াখালী, নাটোর, জয়পুরহাট, বাগেরহাট, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, নড়াইল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, সুনামগঞ্জ, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী ও পঞ্চগড় জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হবে।

প্রকল্প বাস্তবায়ন ইউনিট-পিআইইউ-এর জনবল খাতে শিগগিরই একজন প্রকল্প পরিচালক, সহকারী প্রকল্প পরিচালক, ইকুইপম্যান্ট অফিসার, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা, হিসাবরক্ষক ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর একজন করে এবং ড্রাইভার, অফিস সহায়ক দুইজন করে নিয়োগ দেওয়া হবে। এছাড়াও যাববাহন খাতে প্রকল্প পরিচালকের জন্য একটি জিপ, পিআইইউর জন্য একটি মাইক্রোবাস, ২৩টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের জন্য ২৩টি মাইক্রোবাস সংস্থানের জন্য ডিপিপিতে রাখা হয়েছে। সে হিসেবে একটি জিপসহ মোট ২৪টি মাইক্রোবাস ক্রয় করা হবে। কারিগরি শিক্ষা অধিদফতর প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে এবং প্রকল্পের অবকাঠামো নির্মাণ করবে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতর (ইইডি)।

সূত্র জানায়, প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে পাঁচ একর করে ভূমি উন্নয়ন, জমি অধিগ্রহণ করার প্রক্রিয়া চলছে। এসব প্রয়োজনীয় সব কাজ শেষে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতর এগুলোর নির্মাণকাজ শুরু করবে। প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল জুলাই ২০১৮ থেকে জুন ২০২১ সাল ধরা হয়েছে।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের উপসচিব (কারিগরি-২) সুবোধ চন্দ্র ঢালী বলেন, সরকার কারিগরি শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়েছে। কারিগরি শিক্ষা এখন আগের মতো নেই। এর চেহারা প্রতিনিয়ত পাল্টে যাচ্ছে। এ কারণে দেশের যেসব জেলায় সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নেই ওইসব জেলায় একটি করে সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনে সরকার উদ্যোগ নিয়েছে। ইতোমধ্যে একনেকে প্রকল্পের অনুমোদন হয়েছে। এখন জমি অধিগ্রহণসহ নানামুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে শিগগিরই প্রকল্পের যাত্রা শুরু করা হবে।


এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর