মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ৩:১৫ এএম


অসত্য তথ্য দিয়ে এমপিওভুক্তি: সংশোধিত গেজেট মার্চে

নিজামুল হক

প্রকাশিত: ০৮:৩০, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৮:৩২, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ঢিমেতালে চলছে নতুন প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির কাজ। প্রায় সাড়ে তিন মাস আগে ২ হাজার ৭৩৭ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেওয়া হয়। গেজেটও প্রকাশ করা হয়। অসত্য তথ্য দিয়ে কেউ এমপিওভুক্তির আবেদন করছে কি না, তার জন্য নতুন করে যাচাই-বাছাই শুরু হয়। ফলে সংশোধিত গেজেট প্রকাশ করতে হবে। যা এখনো করতে পারেনি মন্ত্রণালয়।

অন্যদিকে প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির পর শুরু হবে শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির কাজ। সেখানেও ব্যয় হবে কয়েক মাস। সে হিসাবে আগামী জুনের আগে শিক্ষক এমপিওভুক্ত নিয়ে এক প্রকার অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশীদ আমিন বলেন, নতুন শিক্ষকের এমপিওভুক্তির এক বছরের টাকা আমাদের হাতে রয়েছে। আগামী সংশোধিত বাজেটের আগেই এই অর্থ শিক্ষকদের দিতে হবে। সে লক্ষ্যেই কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, আগামী মার্চের মধ্যেই প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির সংশোধিত গেজেট প্রকাশের চিন্তা করছি। আর সে লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি।

এমপিওভুক্তির ব্যাপারে দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এই কর্মকর্তা বলেন, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করতে সময় বেশি সময় লাগলে ‘বিকল্প’ ভাবা হবে। শিক্ষকরা গত জুলাই মাস থেকে বকেয়া বেতন-ভাতা পাবেন। বর্তমানে যে সফটওয়্যার রয়েছে, তা ব্যবহারের মাধ্যমে বকেয়া বেতন-ভাতা পাওয়ার সুযোগ নেই। এ কারণে সফটওয়্যারের নতুন তথ্য সংযোজনের কথা জানান তিনি।

এবার এমপিওভুক্তি আবেদন গ্রহণ, সফটওয়্যার তৈরিসহ নানা ক্ষেত্রে নানা অব্যবস্থাপনা ছিল। যে কারণেই কিছু ভুলভ্রান্তি হয়েছে।

অবশ্য মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন, প্রতিষ্ঠানগুলো যাচাই কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে আছে। আগামী সপ্তাহে তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে পারব। তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় এমপিওভুক্তির কাজ চলছে। সেখানে বেশি সময় ব্যয় হবে না বলে তিনি দাবি করেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় এমপিওভুক্ত একটি সময় সাপেক্ষ প্রক্রিয়া। বর্তমানে অনলাইনে এমপিওর জন্য আবেদন করতে হয়। নিয়ম অনুযায়ী, প্রত্যেক শিক্ষক-কর্মচারীর এমপিও-সংক্রান্ত কাগজপত্র প্রতিষ্ঠান প্রধান অনলাইনে নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে আপলোড করবেন। এরপর তা উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা যাচাই-বাছাই করেন। তার মতে, কাগজপত্র ঠিক থাকলে, তা তিনি জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পাঠাবেন। তিনি ঐ কাগজপত্রে সন্তুষ্ট হলে তা পাঠাবেন আঞ্চলিক উপপরিচালকের কাছে। উপপরিচালক তা নিষ্পত্তি করে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য এমপিও-সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় কমিটিতে উপস্থাপন করবেন। সেখানে তা চূড়ান্ত অনুমোদন পাবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এভাবে শিক্ষকদের কাগজপত্র চারটি ধাপে যাচাই-বাছাই হয়। এ কারণে প্রত্যেকটি ধাপেই ধরনা দিতে হবে। এই সুযোগে অনেকেই হয়রানি এবং ঘুষ বাণিজ্যের শিকার হন। ঘুষ না দিলে ফাইল নিষ্পত্তি হয় না এমন অভিযোগ প্রায় সব শিক্ষকের। এই চার ধাপে নিষ্পত্তি হতে কখনো ছয় মাসেও হয় না। সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা বলছেন, এভাবে স্বাভাবিক প্রক্রিয়া অনলাইনে আবেদন নেওয়া হলে শিক্ষকরা হয়রানির শিকার হতে পারেন। তাই তারা সনাতনী পদ্ধতিরও দাবি তুলছেন।

তথ্য অনুযায়ী, বিদ্যমান প্রক্রিয়ায় মাউশির অধীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিষ্ঠানের কোড সৃষ্টি করা হয় প্রতি বেজোড় মাসের এমপিও কমিটির কেন্দ্রীয় বৈঠকে। সেই হিসাবে সামনে বেজোড় মাস আছে মার্চ এবং মে। যদি আগামী সপ্তাহে প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির চূড়ান্ত গেজেট প্রকাশ করা সম্ভব হয় এবং অন্যান্য কাজ ঠিকঠাক মতো চলে তবে মার্চ মাসে প্রতিষ্ঠানগুলো কোড নম্বর পাবে, যে কোডে শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওর অর্থ যাবে। এরপর শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওর জন্য আবেদন করতে হবে।

গত ২৩ অক্টোবর এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাড়ে ৯ বছর পর সরকার ২ হাজার ৭৩০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে। এর আগে ২০১০ সালে একসঙ্গে ১ হাজার ৬২৬টি প্রতিষ্ঠানকে একসঙ্গে এমপিও দেওয়া হয়। এমপিওভুক্ত ২ হাজার ৭৩০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল ও কলেজ ১ হাজার ৬৫১টি, বিভিন্ন ধরনের কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং মাদ্রাসা ১ হাজার ৭৯টি। নতুন এই এমপিওভুক্তির কারণে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগে মোট ৮৮১ কোটি টাকা ব্যয় বেড়েছে।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর